মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কলমাকান্দা উপজেলার পটভূমি

 

বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব সীমান্তে বৃহত্তর ময়মনসিংহ জুড়ে আছে গারো পাহাড় যার পাদদেশ বেয়ে গণেশ্বরী, মহেশ্বরী, মহাদেও বিধৌত কলমাকান্দা উপজেলা। এককালে কলমাকান্দা সুসঙ্গ ও সিংধা মৈন পরগণাভুক্ত ছিল। কলমাকান্দার ভৌগোলিক বৈশিষ্ট অত্যন্ত চমকপ্রদ। কলমাকান্দা যেমন পেয়েছে গারো পাহাড়ের সান্নিধ্য তেমনি এ উপজেলায় রয়েছে অনেকগুলো ছোট বড় হাওর।

নামকরণঃ

          কলমাকান্দার নামকরণে জনশ্রুতির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। এরকমই এক জনশ্রুতি থেকে জানা যায়- পাহাড়ি ঢলে নেমে আসা পানির সঙ্গে পলিমাটি এসে এ অঞ্চল ভরাট ভূমিতে রূপান্তরিত হয়। এ ভরাট ভূমির স্থানীয় নাম কান্দা। কান্দায় জন্মানো কলমি গাছ (জলজ উদ্ভিদ) মাটি আটকে ধরে এ ভরাট ভূমিতে আরো মাটি সঞ্চয় করতে সহায়তা করে। সে কারণেই প্রথমে স্থানটি কলমিকান্দা নামে পরিচিত হয় ও পরে মানুষের মুখের ভাষায় কলমাকান্দা নামে পরিণত হয়।

          আরেক জনশ্রুতি থেকে জানা যায়, গারো পাহাড়ে উৎপন্ন প্রচুর কমলা এ স্থানে সমতলবাসী ও পাহাড়ী গারোদের মাঝে ক্রয় বিক্রয় হতো। এ কারণে এ কান্দা অঞ্চলটি কমলাকান্দা নামে পরিচিতি লাভ করে। কালের পরিক্রমায় কমলাকান্দা অঞ্চলে মুসলমানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ হতে থাকলে তারা কমলাকান্দা কে কলমাকান্দা নামে আখ্যায়িত করে। এখন পর্যন্ত অনেকেই কলমাকান্দাকে কমলাকান্দা নামেই ডাকে।

ঐতিহ্যঃ

          কলমাকান্দা নামকরণের পূর্বে এ অঞ্চলে হিন্দু ধর্মালম্বী বা পৌত্তলিক জনগোষ্ঠীর যথেষ্ট প্রভাব পড়েছিল। কলমাকান্দা উপজেলার মহিষাসুর, মহাদেও, গণেশ্বরী, সংগেশ্বরী, মহেশ্বরী প্রভৃতি স্থান ও নদীর নাম এককালে এককালে এ অঞ্চলে হিন্দুদের আধিপত্যের সাক্ষ্যই বহন করে। চাঁদ সওদাগরের ডিঙ্গা এ অঞ্চলে ডুবে ছিল এ পৌরাণিক কাহিনীকে এ অঞ্চলবাসী সত্য বলেই মনে করে। তাদের বিশ্বাস ডুবে যাওয়া চাঁদ সওদাগরের ডিঙ্গার মাস্তুল গারো পাহাড়ের শিলাস্তরে অংকিত হয়ে পূর্বের স্মৃতি বহন করছে। চন্দ্রডিঙ্গা নামক গ্রামটি সেই স্মৃতি চিহ্নের একটি।

ভাষা ও সংস্কৃতিঃ

          যৌথ সাংস্কৃতিক ধারা প্রবাহিত কলমাকান্দায়। লেঙ্গুরা, খারনৈ, নাজিরপুর ও রংছাতি ইউনিয়নে গারো, হাজং ও বানাই জনজাতির বসবাস প্রাচীনকাল থেকে। ফলে বাঙালি ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সংস্কৃতি ও জীবনধারা সমান্তরালে বহমান সেই প্রাচীনকাল থেকে।

উপজেলা প্রশাসনের পটভূমিঃ

          সুসং ও সিংধা মৈন পরগণাভুক্ত কলমাকান্দার প্রথম প্রশাসনিক কাজ শুরু হয় বৃটিশ শাসনামলে। প্রথমে এ উপজেলার প্রশাসনিক কাজ দূর্গাপুর থেকে পরিচলিত হত। ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দের পর থেকে কলমাকান্দা উপজেলার দক্ষিণাংশ পরিচালিত হয় বারহাট্টা থেকে। ইস্ট বেঙ্গল ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ এর Notification no. 8909. P Dated 23 Rd July 1917মূলে ১৯১৯ সালে দূর্গাপুর থানার একটি পুলিশ ফাঁড়ি প্রতিষ্ঠিত হয় কলমাকান্দায়। সে সময় বারহাট্টা থানারও কিছু অংশ এ ফাঁড়ি অধীনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়ে ছিল।

          ১৯৪১ খ্রিস্টাব্দের ১৭ নভেম্বর কলমাকান্দা ফাঁড়ি থানাকে পূর্ণাঙ্গ থানায় রূপান্তর করা হয়। ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে নেত্রকোণা মহকুমার অন্যান্য থানাগুলোর মত কলমাকান্দায়ও প্রশাসনিক কর্মের সঙ্গে সার্কেল উন্নয়ন ও রাজস্ব অফিস স্থাপিত হয়। ১৯৮৩ সনের ২৪ মার্চ কলমাকান্দা থানা উপজেলায় রূপান্তরিত হয়। ১৪৫.৭২ বর্গমাইল আয়তনের কলমাকান্দা উপজেলায় বর্তমানে ৮টি ইউনিয়ন রয়েছে।